অবশেষে শিরোপা উঠল আর্জেন্টিনার হাতে

অবশেষে শিরোপা উঠল আর্জেন্টিনার হাতে

অপেক্ষার অবসান ঘটল অবশেষে। ২৮ বছর পর মেজর কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা উঠল আর্জেন্টিনার হাতে। সেই সঙ্গে লিওনেল মেসির হাতেও উঠলো প্রথম আন্তর্জাতিক কোনো শিরোপা। টানা চারটি ফাইনাল হারের পর অবশেষে কোপা আমেরিকা ২০২১ এ স্বাগতিক ব্রাজিলকে ১-০ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে শিরোপা ঘরে তুলল আর্জেন্টিনা। আলবেসিলেস্তেদের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া।

ম্যাচের ২০ মিনিটে মধ্যমাঠ থেকে রদ্রিগো ডি পল লং বল বাড়িয়ে দেন ডান দিকে থাকা ডি মারিয়ার উদ্দেশে। ব্রাজিলের বাঁ দিকের রক্ষণে থাকা রেনান লোদির হালকা স্পর্শে বল পেয়ে যান ডি মারিয়া। এরপর বল নিয়ে একাই ঢুকে পড়েন ডি-বক্সে। মারিয়াকে বল নিয়ে এগিয়ে আসতে দেখে গোললাইন ছেড়ে এগিয়ে যান ব্রাজিল গোলরক্ষক এডারসন। আর তাকে এগিয়ে আসতে দেখেই মাথার ওপর দিয়ে ফ্লিক করে বল জালে জড়ান ডি মারিয়া।

আর ডি মারিয়ার এই গোলটিই ব্যবধানে গড়ে দেয় ম্যাচের। আর অবসান ঘটে আর্জেন্টিনার ২৮ বছরের অপেক্ষার। ১৯৯৩ সালের পর এই প্রথম মেজর কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা ঘরে তুললো আর্জেন্টিনা। এর আগে ২০০৭ সালে ব্রাজিলের বিপক্ষে আর ২০১৫ ও ২০১৬ সালে চিলির কাছে হারলেও এবারে আর পথভ্রষ্ট হয়নি লিওনেল মেসিরা। টানা চারটি ফাইনালে হারের পর অবশেষে লিওনেল মেসির হাতে উঠলো আন্তর্জাতিক শিরোপা।

ঐতিহাসিক মারাকানায় ম্যাচের শুরু থেকেই বল দখলে দুই দলের আধিপত্য ছিল প্রায় সমানে সমান। আক্রমণেও তাই। তবে প্রথম ২০ মিনিট পর্যন্ত ব্রাজিলের আক্রমণভাগে হানা দিতে পারেনি আর্জেন্টিনা। বরং ব্রাজিল ভীতি ছড়িয়েছে। ম্যাচে ফাউল করে খেলার প্রবণতাও ছিল বেশি।

১৩ মিনিটে ব্রাজিল ভালো সুযোগ পেয়েছিল। নেইমার বক্সে ঢুকে শট নিয়েছিলেন। কিন্তু আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডারদের কারণে তা বাধাপ্রাপ্ত হয়। মেসি-মার্টিনেজরা সুযোগের অপেক্ষায় ছিল। ২২ মিনিটে তাতে সফলও হয় তারা। ডি পলের লং থ্রু থেকে ডিফেন্ডার রেনান লোদি ঠিক মতো ক্লিয়ার করতে পারেননি, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া বল পেয়ে বক্সে ঢুকে গোলরক্ষক এডারসনের মাথার ওপর দিয়ে বা পায়ে সুন্দর ফিনিশিংয়ে গোল করে এগিয়ে দেন আর্জেন্টিনাকে।

২০০৪ সালে সিজার দেলগাদো সবশেষ আর্জেন্টিনার হয়ে ফাইনালে গোল পেয়েছিলেন। এবার দীর্ঘ ১৭ বছর পর ডি মারিয়া গোল পেলেন। এরপর ২৯ মিনিটে দি মারিয়ার শট রক্ষণে এসে বাধাপ্রাপ্ত হলে ব্যবধান বাড়ানো যায়নি। ব্রাজিল গোল শোধে হানা দিয়েছে। নেইমার-পাকুয়েতারা চেষ্টা করেছেন। কিন্তু গোলরক্ষক মার্টিনেজকে বড় পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি।