মালয়েশিয়া যাওয়া-আসার সকল ব্যয় বহন করবে নিয়োগদাতা

মালয়েশিয়া যাওয়া-আসার সকল ব্যয় বহন করবে নিয়োগদাতা

আগে মালয়েশিয়া যেতে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকার প্রয়োজন হলেও এখন থেকে যাওয়া-আসার সকল ব্যয় বহন করবে নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান। এ কথা জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমদ।

মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর ইস্কাটনে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। মন্ত্রী বলেন, শ্রমিকদের স্বার্থ সুরক্ষায় গুরুত্ব দিয়েই ওই চুক্তি করা হয়েছে। আগেই কারও সঙ্গে কোনো ধরনের আর্থিক লেনদেন না করার জন্য পরামর্শ দেন মন্ত্রী।

সব সংকট কাটিয়ে অবশেষে খুলছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার। সাম্প্রতিক চুক্তি নিয়ে প্রবাসী কর্মী ও জনশক্তি রফতানিকারক সবাই খুশি। বিশ্লেষকরা যদিও মনে করেন, শ্রমবাজারটি টেকসই করতে অভিবাসন ব্যয় নিয়ন্ত্রণে রাখা প্রয়োজন। এবার প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীর ঘোষণায় অভিবাসন ব্যয় সংকোচনেরেই ইঙ্গিত পাওয়া গেলো।

২০২২ সালের জানুয়ারি মাসের মধ্যেই মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগ শুরু হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ। বলেন, জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) ডাটাবেজের মাধ্যমে শ্রমিক পাঠানো হবে। কর্মীরা ন্যূনতম খরচে সেখানে যেতে পারবেন।

এর আগে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠাতে গত রবিবার (১৯ ডিসেম্বর) একটি সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) সম্পন্ন হয়েছে। এতে বাংলাদেশের বাংলাদেশের পক্ষে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ ও মালয়েশিয়ার পক্ষে দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান চুক্তিতে সই করেন। এই চুক্তির ফলে প্রায় তিন বছর বন্ধ থাকার পর ফের উন্মুক্ত হচ্ছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার।

চুক্তি স্বাক্ষরের আগে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমদ জানিয়েছেন, প্রায় সাড়ে ৩ বছর পর চালু হতে যাওয়া এই শ্রমবাজারে এবার কোনো সিন্ডিকেট থাকবে না। সব খাতেই কর্মী নেবে মালয়েশিয়া। জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির কয়েক দফা আলোচনার পর নীতিমালা ঠিক হয়েছে, যেটি অনুমোদন দিয়েছে দুদেশেরই মন্ত্রীসভা। এবার সব রিক্রুটিং এজেন্সির জন্য সমান সুযোগ থাকছে বলেও জানান মন্ত্রী।

প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী জানান, কর্মীর ব্যয় বহন করবে মালয়েশিয়ার নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান। কর্মী প্রতি খরচ কতো হতে পারে তার ধারণাও নেওয়া হবে। এছাড়া কোনো এজেন্সিই নির্ধারিত সীমার বাইরে কর্মীর কাছ থেকে টাকা নিতে পারবে না। প্লানটেশন, নির্মাণসহ বিভিন্ন সেবাখাতে কর্মী নেবে মালয়েশিয়া। সরকার বিদেশের চাহিদের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে কাজ করছে। 

এবারের সমঝোতা স্মারকে বেশকিছু বিষয়ে পরিবর্তন আসছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য- জিটুজি প্লাস পদ্ধতি উল্লেখ থাকছে না, যুক্ত হচ্ছে মালয়েশিয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি, থাকছে কর্মীদের বাধ্যতামূলক বিমা, কর্মীদের দেশে ফেরার ব্যবস্থা ও খরচ বহন করবে নিয়োগদাতা, চুক্তি মেয়াদে কর্মীদের দায়িত্ব নিতে হবে মালয়েশিয়ার রিক্রুটিং এজেন্সিকেও, বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮ থেকে ৪৫ বছর পর্যন্ত। তবে কর্মীদের মালয়েশিয়া যেতে অভিবাসন ব্যয় বা খরচ কতো হবে, তা শিগগির জানা যাবে।